সুখশান্তি : এই দুটি অনেকটা কাছাকাছি হলেও একটিকে অন্যটির জায়গায় বসানো চলে না। সুখ ও শান্তির মধ্যে কিছু সূক্ষ্ম পার্থক্য রয়েছে।
যদিও সুখ ও শান্তি একে অপরের সঙ্গে জড়িত  তবুও উভয়ই বাহ্যিক ঘটনা থেকে স্বতন্ত্র।

সুখ

সুখ শব্দটি কয়েকটি বিষয়কে কেন্দ্র করে যেমন— জীবনের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব থাকা, ভালোলাগা ও খারাপ না লাগা। সুখের কোনো নির্দিষ্ট অর্থ নেই, কারণ এটি জীবনের মানের সঙ্গে সম্পর্কিত।

অনেক মানুষ সুখকে একটি অস্থায়ী সন্তুষ্টি হিসেবে বিবেচনা করে। সুখ দীর্ঘ সময় ধরে ক্রোধ ও উত্তেজনা হিসেবে স্থান ধরে রাখতে পারে না এবং এ কারণেই এটি অস্থায়ী হিসেবে বিবেচিত হয়। আপনার জীবনে যখন আকর্ষণীয় কিছু ঘটে তখনই আপনি সুখ অনুভব করতে পারেন।

সুখ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর নির্ভর করে যেমন—অর্জন, উচ্চাকাঙ্ক্ষা, পুরস্কার প্রভৃতি। একইভাবে, বেশ কয়েকটি বাহ্যিক ঘটনা দ্বারা সুখকে নষ্ট করা যেতে পারে। পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষদের কাছে সর্বোত্তম জিনিস নেই, তবে তারা যা কিছু আছে তার সেরা ব্যবহার করেন।

এটি (সুখ) চূড়ান্ত গন্তব্য নয়, কারণ জীবনের বেশিরভাগ ঘটনা স্বল্প সময়ের জন্য আমাদেরকে আনন্দিত করে। যেমন— পদোন্নতি হওয়া, বিয়ে করা, বিশাল আয় করা প্রভৃতি জিনিসগুলো স্বল্পমেয়াদি সুখ দেয় যা সময়ের সাথে ম্লান হয়ে যেতে পারে। আপনার যখন সমস্ত চাহিদা সন্তুষ্ট হয়, আপনি তখন নিখুঁত সুখ পাবেন।

সুখ আপনাকে অভ্যন্তরীণ প্রশান্তি নাও দিতে পারে। আপনি যদি অভ্যন্তরীণ শান্তি খুঁজে পান তবে আপনার সুখ স্থায়ী হতে পারে।

শান্তি

শান্তি হলো আপনার ভেতরে থাকা নিস্তব্ধতা যা সমস্ত আকাঙ্ক্ষা ত্যাগ করে অর্জন করা যায়। জীবনে আপনার ইচ্ছে ও উচ্চাকাঙ্ক্ষা পূরণ করে আপনি সুখী হতে পারেন। তবে আপনি জীবনের সমস্ত আকাঙ্ক্ষা ছেড়ে জীবনে শান্তি অর্জন করতে পারেন।

একটি ভুল ধারণা রয়েছে যে, শান্তি জীবনকে নিস্তেজ করে তোলে। সত্যটি হলো—শান্তি নিস্তেজতার অবস্থা নয়, শান্ত হওয়া। এটি আপনাকে আরও সুখী, সচেতন ও জীবিত করে তোলে। অন্তর্নিহিত শান্তি আবিষ্কার করা লোকেরা তাদের জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত উপভোগ করতে পারে।

অভ্যন্তরীণ প্রশান্তিযুক্ত লোকেরা প্রতিটি পরিস্থিতিকে উড়িয়ে দেয় না—আবার বিশ্লেষণও করে না। শান্তি নষ্ট করে এমন অনেক কিছুই রয়েছে। উদাহরণস্বরূপ—অতীতের ঘটনাগুলো সম্পর্কে চিন্তাভাবনা, লোকেরা কে কী বলেছিল বা কী করেছে ইত্যাদি অর্থহীন চিন্তাভাবনা হওয়ায় এগুলো সময় ও শক্তি অপচয় করে।

মানুষের মন অনেক কিছু ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ঘরের মতো। আপনি যদি ঘরটি পছন্দ না করেন, আপনি যা করতে পারেন তা হলো আপনার ইচ্ছেমতো জিনিসগুলো সাজানো। একইভাবে, যদি আপনার মন চিন্তা, উদ্‌বেগ, ভয় ও অন্তহীন চিন্তাভাবনায় আবদ্ধ হয়। উত্তেজনা ও মানসিক চাপের এই অবস্থাটি জীবনকে নেতিবাচক উপায়ে প্রভাবিত করতে পারে।

সুখ ও শান্তির তুলনামূলক মিল-অমিল

সুখ ও শান্তি একে অপরের সঙ্গে সংযুক্ত এবং একে অপরের থেকে পৃথক করা কঠিন। তবে, এমন কিছু পরিস্থিতি রয়েছে যখন আপনি সুখ ও শান্তি আলাদা করে বুঝতে পারবেন। সুখ ও শান্তির অনুভূতি আলাদা। সুখ ও শান্তির মধ্যে প্রধান পার্থক্য হলো—সুখ শর্তাধীন, যদিও শান্তি নিঃশর্ত।

আপনি যখন শান্তি ও সুখের তুলনা করেন, আপনি যা দেখতে পাবেন তা হলো—শান্তি হলো সুখের চেয়ে শক্তিশালী অনুভূতি। সুখ একটি অনুভূতি যা সন্তুষ্টি থেকে পরিতৃপ্তিতে আনন্দিত করতে পারে। শান্তি চূড়ান্ত অনুভূতি যা সংজ্ঞায়িত করা যায় না।